নুসরাতের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মহিপুরে ইশা ছাত্র আন্দোলনের মানববন্ধন

6

মহিপুর থানা প্রতিনিধিঃ ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাসহ এর সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন করেছে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন মহিপুর থানা শাখা।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল ১০.০০ টায় শাখা সহ-সভাপতি তরুণ কবি মাইনুদ্দিন আল আতিক-এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এইচ.এম আল আমিন-এর সঞ্চালনায় এ্যাপোলো ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে বক্তব্য রাখেন ইসলামী যুব আন্দোলন মহিপুর থানা শাখার সভাপতি হযরত মাওলানা শহিদুল ইসলাম (জাকারিয়া), সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুর রহমান, ইশা ছাত্র আন্দোলন মহিপুর থানা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ ইয়াসিন আল আরাফাত-সহ অনেকে।

ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দিতে হবে। এ হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাকে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি দিতে হবে। এ ছাড়া বাংলাদেশের নারীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, বিভিন্ন অফিস-আদালতে যৌন নির্যাতনের স্বীকার হতে হয়। তিন সন্তানের জননী এমনকি শিশুদেরও যৌন নির্যাতন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি, যৌন নির্যাতনের জন্য কঠিন আইন করা হোক।’

বক্তারা আরও বলেন, ‘নুসরাত আমাদের প্রতিবাদ করতে শিখিয়েছে। সে অন্যায়ের কাছে মাথা নতো করেনি। মৃত্যুর আগেও সে দোষীদের শাস্তি চেয়েছে। তাই আমাদের সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে প্রতিবাদ করতে হবে।’

এ সময় ইসলামী শাসনব্যবস্থা না থাকার কারণেই এসব জাহেলিয়াতী কর্মকান্ড সংগঠিত হচ্ছে বলে দাবি করে বক্তারা বলেন, দিন দিন মানুষ পশুর চেয়েও জঘন্য কাজে লিপ্ত হচ্ছে। সমাজ থেকে এ সমস্ত জাহেলিয়াতী দূর করতে ইসলামী শাসনের বিকল্প নেই। তাই ইসলামী শাসন কায়েমে ইসলামী আন্দোলনে সকলকে শরীক হতে আহ্বান জানান তারা।

এ মানববন্ধনে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন মহিপুর থানা শাখাসহ পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নগুলোর ছাত্র আন্দোলেনের বিভিন্ন পর্যায়ের দায়িত্বশীলগণ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়াও ইসলামী আন্দোলন, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন, ইসলামী যুব আন্দোলন ও মুজাহিদ কমিটির দায়িত্বশীলগণ-সহ স্থানীয় ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মহিপুর সদর ইউনিয়ন শাখার সভাপতি হাফেজ ফরিদ উদ্দিনের দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে মানববন্ধন সমাপ্তি হয়।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় আলিম পরীক্ষার কেন্দ্রে মাদ্রাসার ছাদে ডেকে নিয়ে নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে পালিয়ে যায় কয়েকজন মুখোশধারী। পরিবারের অভিযোগ, ২৭ মার্চ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা তার কক্ষে ডেকে নিয়ে নুসরাতের শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন। এ বিষয়ে স্বজনদের দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের চাপ দিয়েও প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় নুসরাতকে আগুনে পোড়ানো হয়। আগুনে ঝলসে যাওয়া নুসরাত ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল রাত সাড়ে ৯.০০ টায় ইন্তেকাল করেন।

ভাগ