কলাপাড়ায় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারের পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন টক অব দ্যা টাউনে পরিনত

8

মাইনুদ্দিন আল আতিক, পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর মহিপুর থানাধীন ডালবুগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম শিকদার ও একই ইউনিয়নের ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার মোসা. শাহানারা বেগম শানুর পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন এখন টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়েছে।

বয়স্কভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, জেলেদের বিশেষ বিজিএফসহ সরকারের দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচির সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়সহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে ইউপি মহিলা মেম্বার শাহানারা বেগম শানুর বিরুদ্ধে বুধবার (৩ এপ্রিল) রাতে কলাপাড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম শিকদার।

এ দিকে এর ঠিক ২৪ ঘন্টার মাথায় বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) রাতে কলাপাড়া প্রেসক্লাবে এবং শুক্রবার (৫ এপ্রিল) সকালে মহিপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন শাহানারা বেগম শানু।

এ সময় তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। বরং তিনি চেয়ারম্যানের বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদ করায় তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের প্রপাগন্ডা ছড়ানো হচ্ছে। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, ‘চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম সিকদার আমার বিরুদ্ধে মানহানিকর, কুরুচীপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এর কারণ বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে চেয়ারম্যান খাল কাটার নামে আমাদের তিন একর ভূমি, বাড়ি-ঘর ভরাট করায় সহকারি জজ আদালতে আমার ভাই মামলা দায়ের করেন। চেয়ারম্যান মামলা প্রত্যাহারের জন্য চাপ সৃষ্টি করলে আমি প্রতিবাদ করি। এতে সে ক্ষুদ্ধ হয়ে ২১ মার্চ ২০১৯ তার অনুগত ক্যাডার দিয়ে আমাকে লাঞ্চিত করে। আমি প্রতিকার
পেতে জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা করি। এর পরিপ্রেক্ষিতে সে তার বাড়ির গৃহপরিচারিকা খুকুমনি ওরফে আয়শাকে খাতুনকে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে সরকারি সেবা-সুবিধা বিতরনে দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ এনে মামলা করে। পরে জুডিসিয়াল আদালত ইউএনও কলাপাড়াকে তদন্তের নির্দেশ দেন। ৩রা এপ্রিল রাতে চেয়ারম্যান আমার ১৫০ আকাশমনি গাছ কেটে, মাছের ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে দুই লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে এবং এক লক্ষ বিশ হাজার টাকা মূল্যের একটি গাভী গরু চুরি করিয়ে নেয়। চেয়ারম্যানের হুমকিতে বর্তমানে আমি পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।’

মহিলা মেম্বার নিজেসহ তার গোটা পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে তিনি জানান, এসব বিষয় নিয়ে মামলা করেও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর বাঁধা ও ভয়ে আদালত এবং থানায় যেতে পারছেন না।

এ বিয়য়ে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম শিকদার বলেন, সকল অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

বর্তমানে মহিপুর থানার ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মহিলা মেম্বারের এ বিরোধ চরমে পৌঁছেছে। এ নিয়ে মহিপুর-কলাপাড়ায় চলছে বিভিন্নমুখী আলোচনা-সমালোচনা। যা এখন টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়েছে। এ বিষয়ে উভয় পক্ষ ঘটনার তদন্ত দাবি করেছেন।

ভাগ