নেত্রকোনার একজন শিল্পী যত্নে গড়েছেন বঙ্গবন্ধুকে।

31

একজন শিল্পী তার মনের সমস্ত মাধুরি মিশিয়ে নিজ হাতে তৈরি করেছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাঠের তৈরি ভাস্কর। এই ভাস্কর্য টি তৈরি করতে প্রায় ৬ বছর লেগেছে। কতটা মুজিব আদর্শের পাগল হলে, কতটা নিখাদ ভালবাসা হলে এমন নিখুঁত প্রাণবন্ত ভাস্কর তৈরি করতে পারে একজন শিল্পী। শিল্পী যে তার সর্বস্ব দিয়েই ভাস্কর টি তৈরি করেছেন তা চোখে দেখলেই অনুধাবণ করা যায়।মনে হয় জীবন্ত মুজিব বসে আছেন। ভাস্কর টি দেখে প্রথমেই সবাই চমকে উঠবেন, যে এতো নিখুঁত এবং নিখাদ কি করে এমন একটি ভাস্কর তৈরি করলেন শিল্পী!
তবে দুঃখের বিষয় এতো বড় ঘটনা আজও আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার কানে পৌঁছেনি।শিল্পীরও সেই সক্ষমতা নেই আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রীর কাছে এই খবরটি পৌঁছানোর। কোনো স্থানীয় নেতাকর্মীদের ও দায় পরেনি যে নেত্রীর কাছে এই খবরটি পৌঁছানোর! বা কোনো সংবাদ মাধ্যম ও না। শিল্পী প্রিয় নেতাকে কাঠের মাধ্যমে তৈরি করে বুকে আগলে ধরে রেখেছেন, যেনো নেতার গায়ে কোনো ধুলো বালি ময়লা না লাগে।তাই প্রতিদিনই কাপড় দিয়ে ডেকে রাখেন ভাস্করটি। সাধ্য নেই কাঁচের আয়নায় বাঁধিয়ে রাখতে।
আমি আমাদের প্রিয় নেত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, আপনি এই শিল্পীর শিল্পকর্মের মূল্যায়ন করুণ। তিনি যেই মুল্যবান ভাস্কর টি তৈরি করেছেন। আপনি এই ভাস্কর টি বাংলাদেশ যাদুঘরে স্থান পাবার ব্যবস্থা করে দিন।
নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা সদর উপজেলার এই শিল্পীর স্বপ্ন একদিন এই ভাস্কর্যটি যাদুঘরে স্থান পাবে।আমরাও আশাবাদী শিল্পীর হাত থেকে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা ভাস্কর্য টি বুঝে নিবেন এবং শিল্পীকে তার এই কাজের যথাযথ সম্মান করবেন।

গ্রামের নাম গোপালপুর
শিল্পীর নাম গোলাম মোস্তফা

ভাগ