শহিদুলের চিকিৎসার আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন খারিজ

14

ক গ্যালারির প্রতিষ্ঠাতা ও আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে হাসপাতালে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাইকোর্টের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত।

সোমবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন ৪ সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এদিন, আদালতে শহিদুল আলমের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সারাহ হোসেন এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের কাছে সরকারের সমালোচনা করে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার অভিযোগে গত ৫ আগস্ট রাতে শহিদুল আলমকে তার ধানমন্ডির বাসা থেকে আটক করে ডিবি পুলিশ। পরে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে পরদিন আদালতের মাধ্যমে তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। কিন্তু শহিদুলকে ডিবি হেফাজতে নির্যাতন করার অভিযোগ এনে রিমান্ডের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ৭ আগস্ট হাইকোর্টে রিট করেন তার স্ত্রী রেহনুমা আহমেদ।

৬৩ বছর বয়সী শহিদুলকে হাসপাতালে পাঠানোর আবেদন জানিয়ে করা আবেদনে বলা হয়, পুলিশ হেফাজতে শহিদুলকে নির্যাতন এবং চিকিৎসা না দিয়ে তাকে রিমান্ডে পাঠানোর মাধ্যমে সংবিধানের ৩১, ৩২, ৩৩ ও ৩৫(৫) অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করা হয়েছে। ওই আবেদন শুনে আদালত দ্রুত শহিদুলকে ডিবি হেফাজত থেকে হাসপাতালে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন। সেই সঙ্গে ৯ আগস্ট সকাল সাড়ে ১০টার মধ্যে তার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দেয়া হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে চেম্বার বিচারপতির আদালতে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করে।

ভাগ