প্রদর্শনীতে সেরা আইইউবি, চোখের ইশারায় চলবে হুইলচেয়ার

7

লাইভ প্রতিবেদক : ‘মানুষের জন্য বিজ্ঞান’ স্লোগানকে সামনে রেখে অনার্সের শিক্ষার্থীদের সেরা উদ্ভাবনী প্রকল্প নিয়ে প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সেরা হয়েছে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের প্রকল্প। চোখের ইশারায় হুইলচেয়ার চালানোর পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তারা। এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টেলিজেন্ট ফরমালিন ডিটেকশন সিস্টেম, শাল বীজ থেকে বায়ো-ফুয়েল আবিষ্কার, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্মার্ট বেবি ইনকিউবেটর ও স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির গ্যাস লিক অ্যালার্ম প্রকল্প আয়োজকদের নজর কেড়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল ফিজিক্স এন্ড টেকনোলজি বিভাগ, ইএমকে সেন্টার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সায়েন্স সোসাইটি এবং রিলেভেন্ট সাইন্স এন্ড টেকনোলজি সোসাইটি, বাংলাদেশের উদ্যোগে ওই প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয় ১৫ সেপ্টেম্বর। আয়োজনের প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল ফিজিক্স এন্ড টেকনোলজি বিভাগের প্রফেসর ডঃ খোন্দকার সিদ্দিক-ই রব্বানী।

৪০টি জমা দেয়া প্রকল্প থেকে দুটি ধাপে বাছাইয়ে টিকে যাওয়া প্রকল্পগুলো প্রদর্শিত হয়েছে কার্জন হল ভবনে। পাশাপাশি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান তাদের উদ্ভাবনী প্রকল্পগুলোও প্রদর্শন করেন। ঢাবির ভিসি প্রফেসর মোঃ আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে সারাদিনের এ অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন। এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন দুজন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী, প্লাজমা প্লাস ল্যাবরেটরীস এর সিনিয়র সাইন্টিফিক অ্যাডভাইজার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের প্রাক্তন প্রফেসর ডঃ আমীর হোসেন খান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিস্ট্রি ও মলিকিউলার বায়োলজি বিভাগের প্রফেসর ডঃ হাসিনা খান। এছাড়া বিশেষ অতিথি ছিলেন আমেরিকান দূতাবাসের কালচারাল অ্যাফেয়ার্স অফিসার, মিস জুলি নিক্লস। এরপর প্রদর্শিত প্রকল্পগুলো থেকে চারজন বিজ্ঞ বিচারক পাঁচটি প্রকল্পকে পুরস্কার দেয়ার জন্য মনোনীত করেন।

ভাগ